ফ্যাশন বিনোদন ভিডিও

হাবরায় হয়ে গেল ‘গ্ল্যামনেশন ২০১৯ : সেশন-৮’ ফ্যাশন শো

করুণময় চ‍্যাটার্জী, হাবরা (উত্তর ২৪ পরগনা) : সম্প্রতি হাবরা ‘রাজনন্দিনী হোটেল’-এর ব‍্যবস্থাপনায় এবং এস.আর. গ্ল্যামার এন্টারট্রেনমেন্ট-এর পরিচালনায় হয়ে গেল ‘গ্ল্যামনেশন ২০১৯ : সেশন-৮’ ফ্যাশন শো। সর্বমোট ৪০ জন মডেল অংশগ্রহণ করেন। ফ্যাশন মানে শুধু কলকাতা তা নয়, গ্রামাঞ্চল যে ফ্যাশনে খুব একটা পিছিয়ে নেই তা দেখা গেল এই ফ্যাশন শোয়ে। শুধু তাই নয়, শারীরিক প্রতিবন্ধীরা এবং রূপান্তরকামীরা এই ফ্যাশন শোতে অংশ নিয়ে অনুষ্ঠানের মাত্রা একটা আলাদা যোগ করে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন গ্রুমিং এক্সপার্ট ও ফ্যাশন ডিজাইনার অঞ্জন কর, মিস বেঙ্গল উইনার সপ্তমি ব্যানার্জী, রাজনন্দিনী হোটেলের কর্ণধার গৌর ঘোষ, এস.আর. গ্লামার এন্টারটেনমেন্টের ডিরেক্টর রিমলি সাহা ও সুজয় প্রামাণিক। এছাড়াও হাজির হয়েছিলেন বিজ্ঞাপনদাতা বিভিন্ন সংস্থার কর্ণধাররা। রিমলি ও সুজয় জানালেন, এই ভাবেই তাদের প্রচেষ্টা নতুন ছেলেমেয়েদের উজ্জ্বল আলোর দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে বিভিন্ন জেলায় এই ফ্যাশন শো করতে চলেছে।

রাজনন্দিনী হোটেলের কর্ণধার গৌর ঘোষ বলেন, এখন মানুষ অনেক ফ্যাশনেবল দুনিয়ায় চলে এসেছেন। ইউরোপ-আমেরিকা তো অনেক আগেই এসেছে। আমরা ইন্ডিয়া কেন পিছিয়ে থাকব। বোম্বেতে ফ্যাশন শো হয়ে থাকে। পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় কেন শো সীমাবদ্ধ হয়ে থাকবে? গ্রামবাংলা-মফঃস্বলও যে পিছিয়ে নেই গ্লামনেশনের অফার তাই ফেলতে পারিনি। এরা চাইছে পিছিয়ে-পড়া জায়গা থেকে ছেলেমেয়েরা উঠে আসুক।

এদের সঙ্গে আলাপ হওয়ার পর তাই এরকম সমাজসেবামূলক কাজের মাধ্যমে আমাদের শহর হাবরা ও তার পার্শ্ববর্তী এলাকা থেকে এই পেশায় উঠে আসুক। তিনি খুবই গর্বের সঙ্গে বলেন, আর আমার বাড়ির লোকেরাও রক্ষণশীল না হওয়ায় ফ্যাশন শো-এর মতো ইভেন্ট করার ক্ষেত্রে আর দ্বিমত করিনি। সেই সঙ্গে আমার ব্যবসাও ওপেন। সমস্ত ধরনের লোকেরা আসা-যাওয়া করেন। সেটাও আমার আরেকটা প্রেরণা। তাই আমার কিছু চেনাশোনা এবং বন্ধুদের সহযোগিতা পেয়ে আমি এই জায়গায় আসতে পেরেছি। আগামীদিনে আরও ভালো কাজ করার চেষ্টা চালিয়ে যাব জিয়া-রিমলি-সুজয়দের মতো প্রতিভাবান লোকদেরকে সঙ্গে নিয়ে।

NB

Leave a Reply