নাটক বিনোদন

অশোকনগর নাট্যমুখ-এর প্রযোজনায় নাটক ‘গান্ধারী’

নজরে বাংলা : যুদ্ধ যুদ্ধ যুদ্ধ… তারপর কি পড়ে থাকে? মায়ের বিলাপ ছড়িয়ে যায় মহাভারত থেকে ভারতে… “গান্ধারী” মঞ্চস্থ হল অশোকনগর নাট্যমুখ নাট্যসংস্থার নিজস্ব প্রযোজনায় ‘অমল আলোয়’ নাট্য আঙিনায়। নাট্যমুখ-এর এই চেনা রিহার্সাল অঞ্চল গতবছর মে ২০১৯ এর মাঝ বরাবর প্রখর দাবদাহে সাতদিনের নাট্য কর্মশালাতে গান্ধারী নাট্যটি নির্মাণ করেছিলেন ভারতবর্ষের বিখ্যাত নাট্যকার নির্দেশক সত্যব্রত রাউত। মূলত একক অভিনয় জুড়ে মহাভারতের মহীয়সী নারী চরিত্র গান্ধারীর জীবনের উপর এই নাট্যের আলোকপাত। কুরুক্ষেত্র যুদ্ধের শেষে নিহত শতপুত্রের শোকে এক মায়ের বিলাপ ধ্বনি রচনা করেছেন নাট্যকার শুদ্ধস্বত্ত্ব ঘোষ। এই নাটকের ডিজাইন রূপরেখা নির্দেশকের তা বাস্তবায়িত ও সামগ্রিক পরিকল্পনা অভি চক্রবর্তীর।
এদিন নাটকের পাশাপাশি ছিল সেমিনার ‘নতুন দশকের থিয়েটার’। আলোচক প্রখ্যাত নাট্যব্যক্তিত্ব বিপ্লব বন্দ্যোপাধ্যায়, সুপ্রিয় দত্ত এবং অভি চক্রবর্তী। সঞ্চালনায় তমাল মুখোপাধ্যায়।

থিয়েটার বা প্লে হাউজ, একটি কাঠামো যেখানে থিয়েটারিক কাজ বা নাটক সঞ্চারিত হয় বা অন্যান্য কনসার্ট তৈরি করা যেতে পারে। এমনই এক চিন্তা চেতনার আঙ্গিকে যখন ভারতবর্ষের থিয়েটারে ইউরোপের ধারা ঢুকে পরেছিল ব্রিটিশদের হাত ধরে যা সান্ধ্যকালীন মনোরঞ্জনের জন্য। পরবর্তীতে ধীরে ধীরে ভারতে বৃহৎ শিল্পের প্রসার নেয়। পরবর্তীতে প্রসেনিয়াম যা একটি ছবির ফ্রেম, আয়তক্ষেত্র মাপের গড়নে উঁচু স্থায়ী বা অস্থায়ী বাঁধা স্থান বা মঞ্চ। সঙ্গে মহামান্য দর্শকের বসার জায়গা, মেকআপ রুম, সেটাও স্থায়ী বা অস্থায়ী, মিনিমাম দশফুট দূরত্বে। ধীরে ধীরে এর শৈলী যা পুরাতন ভারতের সনাতনী আঙ্গিকের যাত্রায়, কখনও পথে বা চণ্ডীমণ্ডপে হরিতলার চারপাশ জুড়ে বা তিনদিক খোলা মঞ্চ বানিয়ে এই ধারা দর্শকের সাথে একাত্ম হওয়ার চেষ্টায় দূরত্ব ভেঙে অভিনেতারা মিলে মিশে অভিনয় প্রদর্শন এসব আজ আর নতুন নয়।
সারা পৃথিবী জুড়ে যখন নতুন এক মহামারীর জন্ম নিল গত বছর, তখন সমস্ত বিশ্বের অর্থনৈতিক সহ সামাজিক ক্ষয়িষ্ণু দেখা দিল প্রতিটি স্তরে। শিল্প, সাহিত্য, বাণিজ্যে বেশ কিছু মাস স্তব্ধ হয়েছিল। বিচ্ছিন্ন ছিল মানুষ থেকে মানুষের মেলামেশা। একা। মানুষ শরণাপন্ন হলো মোবাইল, ইন্টারনেটের । থিয়েটার এসে পড়ল ঘরে, হাতের মুঠোয়। ভাবনার নতুন বিকাশ যা মোবাইল থিয়েটার বা ল্যাপটপ থিয়েটারে আটকে ছিল কিছুদিন। শহরে-নগরে তখন দূরত্ব বজায় রেখে একক থিয়েটার নির্মাণ শুরু হল। একা-একা থিয়েটার! এও কি সম্ভব? মৃত্যুভয় এড়িয়ে মানুষ আরও একটু সাহস সঞ্চয় করল। নিজের বাড়ির ছাদ, উঠোন, রিহার্সাল রুম এসব গুলিকে আশ্রয় করে একটি নতুন দিশার খোঁজ পেল। স্পেস-থিয়েটার বহুল প্রচলিত হয়ে উঠল পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে। ২১ বছরের ‘অশোকনগর নাট্যমুখ’ সে ভাবনা থেকে বাদ যায়নি। তারাও সামিল হল আনলক থ্রি থেকে নিজেদের রিহার্সাল অঞ্চলকে সাজিয়ে নির্মাণ করল এক নাট্যাশ্রম। সবুজ ঘেরা গাছগাছালি পাখিদের বিচরণ দেখা যায় যেখানে সারাদিন। ‛অমল আলো’।

প্রাতিষ্ঠানিক ভাবধারায় মূলত নিজেরা নিজেদের চর্চাকে সজীব রাখার জন্য এই দলের প্রধান প্রতিষ্ঠাতা নির্দেশক অভি চক্রবর্তীর সম্পূর্ণ সদিচ্ছার নির্মাণ সাথে নির্দেশক, অভিনেত্রী সংগীতা চক্রবর্তীর পরম মাতৃত্বে গড়ে ওঠা এক ভালোবাসার নাম ‘অমল আলো’। শিশুর প্রথম উচ্চারিত স্বরবর্ণ জুড়ে ‘অমল আলো’ মূলত শ্রদ্ধেয় প্রয়াত অমল চক্রবর্তীর কথা মনে রেখে (অভি চক্রবর্তীর পিতা)। নাট্যমুখ-এর দীর্ঘ চলার পথে তাঁর আবাসনটি ঘিরে এই প্রচেষ্টা।

নজরে বাংলা
NAJORE BANGLA, founded over 5 years ago, is a well known Bengali, Hindi & English News and Entertainment Web Portal which has a wide-range readers throughout India, all districts of West Bengal, Tripura, Assam and specially in Bangladesh. We have renowned journalists country-wide and in abroad are servicing through their profession. Please send your feedback to najorebangladesk@gmail.com.
http://najore-bangla.com

Leave a Reply