দেশ বিদেশ

দ্বাদশ ভারত-রাশিয়া যৌথ সামরিক মহড়া ইন্দ্র – ২১ হবে রাশিয়ার ভলগোগ্রাড –এ

নয়াদিল্লি : দ্বাদশ ভারত-রাশিয়া যৌথ সামরিক মহড়া আগামী ১-১৩ অগাস্ট পর্যন্ত রাশিয়ার ভলগোগ্রাড – এ অনুষ্ঠিত হবে। যৌথ এই সেনা মহড়ায় রাষ্ট্রসংঘের বিধি ব্যবস্থার আওতায় সন্ত্রাস দমনের কৌশলগুলি নিয়ে নকল মহড়া পরিচালিত হবে।
এই মহড়ার অঙ্গ হিসাবে দুই দেশের সেনাবাহিনীর ২৫০ জন সেনানী অংশ নেবেন। ভারতীয় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে একটি মেকানাইজড্‌ ইনফ্যান্ট্রি ব্যাটেলিয়ন মহড়ায় যোগ দেবে। এই ব্যাটেলিয়নটি যৌথ মহড়ায় অংশগ্রহণের পূর্বে দেশের বিভিন্ন জায়গায় কঠোর প্রশিক্ষণ নিয়েছে।
দু’দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে ইন্দ্র-২১ মহড়া পারস্পরিক আস্থা ও সহযোগিতা আরও মজবুত হবে। সেই সঙ্গে, দু’দেশের সেনাবাহিনী একে অপরের সেরা পন্থা-পদ্ধতিগুলি সম্পর্কে অবগত হতে পারবে। নিরাপত্তা সহযোগিতা ক্ষেত্রে পারস্পরিক সমন্বয়কে আরও শক্তিশালী করে তোলার লক্ষ্যে এই মহড়া আরও একটি মাইলফলক হয়ে উঠতে চলেছে। ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে মিত্রতার যে বন্ধন রয়েছে, তা আরও নিবিড়তর করতে এই মহড়া সুদূরপ্রসারী ভূমিকা নেবে।

বিশ্বের এই দুই বৃহৎ শক্তির পারস্পরিক আস্থা ও বিশ্বাসের ওপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে এক কৌশলগত অংশীদারিত্বের মজবুত বনিয়াদ। এই পারস্পরিক সম্পর্ক এক কথায় অভিনব এবং অতুলনীয়।রাজনৈতিক সংযোগ, নিরাপত্তা, বাণিজ্য ও অর্থনীতি, প্রতিরক্ষা ও প্রযুক্তি, জ্বালানিশক্তি, বিজ্ঞান, সাংস্কৃতিক বিনিময় সফর, বিদেশ নীতি সহ প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রেইপ্রসার লাভ করেছে ভারত-রাশিয়া দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক। এর ফলে, একদিকে যেমন দু’দেশের জাতীয় স্বার্থের বিকাশ ঘটেছে, অন্যদিকে তেমনই শান্তি ও ন্যায়ের ভিত্তিতে এক বিশ্বশৃঙ্খলা গড়ে তোলার কাজও সহজতর হয়ে উঠেছে।

পারস্পরিক শ্রদ্ধা, বিশ্বাস ও সমঝোতার ওপর দাঁড়িয়ে রয়েছে এই দুটি দেশের সম্পর্ক।আর্থ-সামাজিক বিকাশ এবং বিদেশ নীতির ক্ষেত্রেও এই আস্থা ও বিশ্বাসের কোন অভাব নেই।শান্তি ও নিরাপত্তা তথা এক মজবুত বিশ্ব কাঠামো গড়ে তোলার কাজেও তার যথেষ্ট অবদানরয়েছে। বিশ্ব কাঠামোর এই ক্ষেত্রটিতে সভ্যতা ও সংস্কৃতির বৈচিত্র্যও উল্লেখ করারমতো যা মানবজাতির ঐক্য প্রচেষ্টাকে আরও জোরদার করে তুলতে সাহায্য করেছে। এই পরিস্থিতিতে ভারত-রাশিয়া সম্পর্ক আজ কালের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ। বাইরের কোন চাপ বা শক্তি এই সম্পর্কে ফাটল ধরাতে পারেনি।

ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামকে অকুন্ঠ সমর্থন যুগিয়েছিল রাশিয়া। এই দেশকে স্বনির্ভর হয়ে উঠতেও নানাভাবে সাহায্য করেছে সে। ১৯৭১-এর আগস্ট মাসে ভারত ও রাশিয়া স্বাক্ষর করে শান্তি, মৈত্রী ও সহযোগিতা চুক্তিতে যা পারস্পরিক স্বার্থ ও সার্বভৌমত্বের প্রতি শ্রদ্ধা, সুপ্রতিবেশীসুলভ সম্পর্ক গড়ে তোলা এবং শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নীতির ওপর ভিত্তি করে রচিত। দু’দশক পরে ১৯৯৩-এর জানুয়ারিতে নতুন মৈত্রী ও সহযোগিতা চুক্তিতে পূর্বের অনেকগুলি বিষয়কেই আবার নতুন করে স্থান দেওয়া হয়। ২০০০ সালের ৩ অক্টোবর ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে কৌশলগত অংশীদারিত্বের যে ঘোষণাপত্রটি স্বাক্ষরিত হয় তা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে এক নতুন মাত্রায় উন্নীত করে। আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার কথাও বলা হয় তাতে। বিভিন্ন আঞ্চলিক বিষয়ের ওপর আলোকপাত করার পাশাপাশি অর্থনীতি, সংস্কৃতি, শিক্ষা এবং অন্যান্য বিষয়গুলিতেও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষিতকে সামনে রেখে এগিয়ে যাওয়ার দিক নির্দেশ করা হয়। পরবর্তীকালে, ২০১০-এর ২১ডিসেম্বর তারিখে ভারত-রাশিয়ার এই অংশীদারিত্বের সম্পর্ক উন্নীত হয় এক বিশেষ কৌশলগত সহযোগিতার সম্পর্কে।

ভারত-রাশিয়া সম্পর্ককে আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার লক্ষ্যে বিশেষ জোর দেওয়া হয় দুটি দেশের বিদেশনীতিগুলিকে অগ্রাধিকার দানের মাধ্যমে। দুটি রাষ্ট্রই অঙ্গীকার করেছে যে বিভিন্ন ক্ষেত্রের সহযোগিতাকে আরও প্রসারিত করে এবং দ্বিপাক্ষিক কর্মসূচিকে আরও সমৃদ্ধ তথাফলপ্রসূ করে তুলতে সম্ভাব্য সমস্ত সুযোগ কাজে লাগানো হবে।

পরমাণুশক্তি ক্ষেত্রে ভারত-রাশিয়া ক্রমবর্ধমান সহযোগিতার সম্পর্ক ভারতে পরমাণু উৎপাদনের সুযোগ ও সম্ভাবনাকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে। এর ফলে, ‘মেক ইন ইন্ডিয়া’ কর্মসূচির লক্ষ্যপূরণের কাজ সহজতর হয়ে উঠবে বলে মনে করা হচ্ছে। এ সম্পর্কিত একটি চুক্তি ভারত ওরাশিয়ার মধ্যে স্বাক্ষরিত হয় ২০১৫-র ২৪ ডিসেম্বর তারিখে।

দ্বিপাক্ষিক প্রতিরক্ষা সহযোগিতার মূলে রয়েছে পারস্পরিক গভীর আস্থা ও বিশ্বাস। রাশিয়া আধুনিক সামরিক প্রযুক্তি রপ্তানি করে থাকে ভারতে। এই সহযোগিতাকে আরও গভীর ও জোরদার করে তোলা হয় যৌথ উদ্যোগে নির্মাণ ও উৎপাদন প্রচেষ্টার মাধ্যমে। ভবিষ্যতের প্রযুক্তিগত সম্ভাবনা গ্রহণ ও বিনিময়ের মধ্য দিয়ে এবং পারস্পরিক প্রতিরক্ষা সংক্রান্ত বাধ্যবাধকতার প্রতি আনুগত্য বজায় রেখে এই সামরিক সহায়তা প্রসারের ওপর জোর দেওয়া হয়।

ভারতও রাশিয়ার মধ্যে স্বাক্ষরিত ঘোষণাপত্রটিতে দু’দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে সহযোগিতাকে এক উন্নততর পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে। যৌথ উদ্যোগে এজন্য গড়ে তোলা হবে জলও স্থলে সামরিক মহড়া এবং একে অপরের সামরিক প্রতিষ্ঠানগুলিতে প্রশিক্ষণ তথাঅনুশীলন।

অস্ত্রশস্ত্রের যথেচ্ছ ব্যবহার এবং নির্বিচার ধ্বংসলীলা প্রতিরোধ করতে বদ্ধপরিকর দুটি দেশই।রাশিয়া দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে বহুপাক্ষিক রপ্তানি নিয়ন্ত্রণ সংস্থাগুলিতে ভারতের অংশগ্রহণ কাজের সাফল্যকে বহুগুণে বৃদ্ধি করতে পারে। যেকোন ধরনের সন্ত্রাস এবং তার বহিঃপ্রকাশকে কঠোর নিন্দা করে ভারত ও রাশিয়া দুটি দেশই। তারা মনে করে যে সন্ত্রাসের পেছনে কোন ধর্মীয়, রাজনৈতিক, জাতিগত কিংবাআদর্শগত যুক্তি বা কারণ থাকতে পারে না। সুতরাং, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সন্ত্রাস প্রতিরোধে দুটি দেশই তাদের যৌথ প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে অঙ্গীকারবদ্ধ। ভারত ও রাশিয়া মনে করে যে সন্ত্রাসবাদের নজিরবিহীন হুমকি যেভাবে ছড়িয়ে পড়ছে এক দেশ থেকে অন্যদেশে, তাতে শান্তি ও নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার যথেষ্ট আশঙ্কা রয়েছে। এই কারণে বিশ্বের সবক’টি দেশেরই উচিৎ দ্বৈত ভূমিকার খোলস ছেড়ে আন্তর্জাতিক আইন এবং রাষ্ট্রসঙ্ঘের সনদ মেনে সন্ত্রাস বিরোধী প্রচেষ্টায় অংশগ্রহণ করা। এই লক্ষ্যে সব ক’টি দেশ এবং আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে আবেদন সন্ত্রাসবাদী নেটওয়ার্ক পুরোপুরি বান্‌চাল করে দেওয়ার জন্য।

নজরে বাংলা
NAJORE BANGLA, founded over 5 years ago, is a well known Bengali, Hindi & English News and Entertainment Web Portal which has a wide-range readers throughout India, all districts of West Bengal, Tripura, Assam and specially in Bangladesh. We have renowned journalists country-wide and in abroad are servicing through their profession. Please send your feedback to najorebangladesk@gmail.com.
http://najore-bangla.com

Leave a Reply